1. miahmohammadshuzan@gmail.com : Central News :
  2. centralnewsbd24@gmail.com : CNB BD : CNB BD
দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন কালিগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান রাকিবুজ্জামান আহমেদ | Central News BD
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কথা বলার অধিকার কে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী রংপুরে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যান্ডার পর স্বামীর আত্মহত্যা বলে প্রচারনা কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে মামলা রংপুরে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন বেরোবিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের গণপদযাত্রা ও স্মারকলিপি প্রদান গুলির ঘটনায় মুখ খুললেন ডোনাল্ড ট্রাম্প আজ গণপদযাত্রা করে রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি দেবে কোটা আন্দোলরকারীরা আজ সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী হামাসকে ‘সন্ত্রাসী সংগঠন’ ঘোষণা আর্জেন্টিনার রংপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধাগণের সাথে রংপুর জেলার নবাগত পুলিশ সুপারে মতবিনিময় সভা।

দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন কালিগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান রাকিবুজ্জামান আহমেদ

সিএনবি নিউজ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪
  • ১৩ জন সংবাদটি পড়েছেন
চারিদিকে আজ খুশির জোয়ার
সবাই গাইছে গীত,
এসেছে ধরায় মুসলিম জাহানের
প্রিয় কুরবানির ঈদ।
সবাই ঈদে কুরবানি দিবে
প্রতিপালকের তরে,
মানব মনের পশুত্বটা যেন
একেবারেই যায় মরে।
মুসলিম জাহানের জন্য খুশির বার্তা নিয়ে বছর ঘুরে ফিরে এসেছে ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদুল আজহা। কুরবানির স্বীকৃতি প্রদান করে মহান আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে সুস্পষ্টভাবে ঘোষণা করেছেন, ‘আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য কুরবানির এক বিশেষ রীতি-পদ্ধতি নির্ধারণ করে দিয়েছি, যেন তারা ওসব পশুর ওপর আল্লাহর নাম নিতে পারে যে সব আল্লাহ তাদের দান করেছেন।’
(সুরা আল হজ্জ-৩৪) রাসুল (সা.) আরও বলেছেন, ‘কুরবানির দিনে আল্লাহর নিকট রক্ত প্রবাহিত (কুরবানি করা) অপেক্ষা প্রিয়তর কোনো কাজ নেই। অবশ্যই কেয়ামতের দিন (কুরবানিদাতার পাল্লায়) কুরবানির পশু তার শিং, পশম, তার ক্ষুরসহ হাজির হবে। কুরবানির রক্ত মাটিতে পতিত হওয়ার আগেই আল্লাহর দরবারে পৌঁছে যায়। তাই তোমরা প্রফুল্ল মনে কুরবানি করো।’ (তিরমিযি, ইবনে মাজাহ)।
মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের প্রতি প্রিয় বান্দা হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও তার পুত্র হজরত ইসমাঈলের (আ.) সীমাহীন ভক্তি, সর্বোচ্চ ত্যাগের সদিচ্ছা এবং গভীরতম আত্মসমর্পণে পরম করুণাময় সন্তুষ্ট হন এবং তিনি ইব্রাহিমকে (আ.) আত্মত্যাগ ও ভালোবাসার নিদর্শনস্বরূপ পশু কুরবানি করার নির্দেশ দেন।
এ সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘আপনি তাদের আদমের দুই পুত্রের বাস্তব অবস্থা পাঠ করে শোনান। যখন তারা উভয়েই কুরবানি করেছিল, তখন তাদের একজনের কুরবানি গৃহীত হয়েছিল এবং অপরজনেরটা গৃহীত হয়নি’ (সূরা মায়েদা, আয়াত-২৭)। আল্লাহ এখানে কুরবান শব্দ ব্যবহার করেছেন। উর্দু ও ফার্সিতে কুরবানি ব্যবহার হয়।
কুরবানির আরেকটি আরবি শব্দ হচ্ছে নুসুক। এর অর্থও ত্যাগ, উৎসর্গ ইত্যাদি। যেমন, ‘আপনি বলুন-নিশ্চয় আমার নামাজ, আমার কুরবানি, আমার জীবন, আমার মৃত্যু আল্লাহরই জন্য’ (সূরা আনআম, আয়াত-১৬২)। কুরবানির আরেকটি শব্দ হলো-নাহার। এর অর্থও উৎসর্গ। ‘অতএব আপনার পালনকর্তার উদ্দেশে নামাজ পড়ুন এবং কুরবানি করুন’ (সূরা কাওসার, আয়াত-২)। এ কারণেই কুরবানির দিনকে ইয়াওমুন নাহার বলা হয়। তবে উজহিয়্যা, কুরবানি, নুসুক, নাহার-যে নামেই বলি, সবগুলোর অর্থ ও উদ্দেশ্য কিন্তু এক। সেটা হলো-ত্যাগ, উৎসর্গের মাধ্যমে মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভ।
কুরবানির ত্যাগ-উৎসর্গ আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের একটি অন্যতম মাধ্যম। আল্লাহ আমাদের সৃষ্টি করেছেন। তিনি আমাদের সবচেয়ে প্রিয়। পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়স্বজনের জন্য আমরা আমাদের প্রিয় জিনিস উৎসর্গ করি। মহান আল্লাহ আমাদের সবচেয়ে প্রিয় বিধায় বান্দা হিসাবে আমাদের তার জন্য সবেচেয়ে প্রিয় জিনিস উৎসর্গ করতে হয়। সেটা করতে আমরা কতটুকু প্রস্তুত, সেই পরীক্ষাই মহান রব তার প্রিয় বান্দা ও রাসূল ইব্রাহিমের (আ.) মাধ্যমে নিতে চেয়েছেন।
আল্লাহ তাকে স্বপ্নে আদেশ করেছেন বৃদ্ধ বয়সে পাওয়া এবং তরুণ বয়সে উপনীত হওয়া সন্তান ইসমাইলকে (আ.) জবাই করার জন্য। একই স্বপ্ন ইব্রাহিম (আ.) তিন দিন দেখার পর প্রিয় সন্তান ইসমাইলকে বলেন : ‘হে বৎস, আমি স্বপ্নে দেখি যে, তোমাকে জবাই করছি। এখন তোমার মত কী? সে বলল, হে আমার পিতা, আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে আপনি তা-ই করুন। ইনশাআল্লাহ আপনি আমাকে ধৈর্য ধারণকারীদেরও অন্তর্ভুক্ত পাবেন’ (সূরা সাফফাত, আয়াত-১০২)।
ইব্রাহিম (আ.) ইসমাইলকে (আ.) বেঁধে শুইয়ে দিয়ে তার গলায় ছুরি চালানোর সময় ধারাল ছুরি কাজ করছিল না। ‘তখন আমি তাকে ডেকে বলি : হে ইব্রাহিম, তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে। এভাবে আমি সৎকর্মীদের পুরস্কার দিয়ে থাকি। নিশ্চয় এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা। আমি তার পরিবর্তে দিলাম জবাই করার এক মহান জন্তু।’ (সূরা সাফফাত, আয়াত ১০৫-১০৭)।
এ ঘটনার পর থেকে মুসলমানরা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী ত্যাগ ও আত্মোৎসর্গের প্রতীক হিসাবে পশু কুরবানি দিয়ে আসছেন। প্রতিবছর মুসলমানদের বৃহত্তম ধর্মীয় অনুষ্ঠান পবিত্র হজের পরই দেওয়া হয় কুরবানি। পাঁচ দিন ধরে চলে হজের আনুষ্ঠানিকতা। বিভিন্ন দেশ থেকে আসা লাখ লাখ মুসলমান আরাফাত ময়দানে সমবেত হন। এটি মুসলিম ভ্রাতৃত্বের এক অনন্য দৃষ্টান্তও বটে।
কুরবানির মূল কথা হলো ত্যাগ। সামর্থ্য অনুযায়ী পশু কুরবানি দিয়ে দরিদ্র প্রতিবেশীদের মধ্যে এর মাংস বিতরণ করা প্রত্যেক মুসলমানের দায়িত্ব। পরিতাপের বিষয়, এদেশের অনেকের কাছে ধর্মের মতো আধ্যাত্মিক বিষয়ও পরিণত হয়েছে লোক দেখানো আচারে। প্রতিযোগিতা করে মাংস খাওয়া এবং মাসের পর মাস জমিয়ে রাখা আমাদের কালচারে পরিণত হয়েছে। এটা কোনোভাবেই কাম্য নয়।
পবিত্র কুরআনে এরশাদ হয়েছে- আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে কুরবানি করা পশুর রক্ত বা মাংস কিছুই পৌঁছায় না, শুধু পৌঁছায় বান্দার তাকওয়া। কাজেই কুরবানি কোনো লোক দেখানো বা প্রতিযোগিতার বিষয় নয়। কুরবানির অর্থ ত্যাগ বা উৎসর্গ। আল্লাহতায়ালা প্রিয় বস্তুকে উৎসর্গ করতে বলেছেন। আমরা তার আদেশ পালন করব অন্তরের তাগিদে, মানুষকে দেখানোর জন্য নয়। কুরবানির মাধ্যমে আমরা ভেতরের পশুশক্তিকে যেমন হত্যা করব, তেমনি সুদৃঢ় করব মানুষে মানুষে ভালোবাসা।
সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অভুক্ত শীর্ণ মানুষের জন্য একবেলা বা দুবেলা উন্নতমানের আহারের ব্যবস্থা করা যায়। সব ধর্মেই দানকে মহিমান্বিত করা হয়েছে। মানবতার সেবাই তো প্রকৃত ধর্ম। পশু কুরবানির মধ্য দিয়ে ব্যক্তি, সমাজ তথা মানুষের ভেতরের পশুশক্তিকে দমনই হচ্ছে কুরবানির মূল কথা। ঈমানদার মুসলমানরা তা-ই করেন। এ ত্যাগ ও আত্মোৎসর্গের পথ ধরে লাভ করা যায় আল্লাহর নৈকট্য।
সবার উচিত সতর্কতার সঙ্গে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপন করা। পশু কুরবানি ও কুরবানি-পরবর্তী যাবতীয় কর্মকাণ্ডে সতর্ক থাকতে হবে। পশু কুরবানি-পরবর্তী পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে বিশেষভাবে তৎপর হতে হবে।
অনুরোধ থাকবে, পশু কুরবানি দেওয়ার ক্ষেত্রে সবাই যেন পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে সচেষ্ট হন। আমাদের অসচেতনতার কারণে আনন্দের ঈদ যেন নিরানন্দ না হয়। ঈদের পবিত্রতা সব ক্ষেত্রেই বজায় রাখা প্রয়োজন। ইসলাম শান্তি, সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্ববোধের ওপর সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়।
আনন্দঘন ঈদ উদযাপন সুন্দর-স্বাভাবিক-সাবলীল ধারায় প্রতিপালিত হোক- এই প্রত্যাশায় দেশবাসীসহ বিশ্বের সব নাগরিককে ঈদের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করছি। ঈদের আনন্দ সবাই ভাগাভাগি করে নেবে, এটাই প্রত্যাশা।
সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা। ঈদ মোবারক।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

© ২০২১-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | সেন্ট্রাল নিউজ বিডি.কম

Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )